হাঁটলেই চার্জ হবে মোবাইল! অভিনব আবিষ্কার ১৯ বছরের ভারতীয় দুই কিশোরের-

বিজ্ঞাপন

অবাক হওয়ার কিছু নেই। মোবাইল ফোন চার্জ দিতে লাগবেনা আর চার্জার, পাওয়ার ব্যাঙ্ক। হাঁটলেই হয়ে যাবে আপনার মোবাইল চার্জ।

১৯ বছর বয়সী ভারতীয় দুই কিশোর মোহক ভাল্লা ও আনন্দ গঙ্গাধারণ এর এই অসাধারন আইডিয়া। দুই কিশোরের বাসস্থান দিল্লিতে। অপেক্ষা করুন আর কয়েক বছর সকলেই এই চার্জার হাতে পাবেন।

দশম শ্রেণিতে পড়াকালীন এই দুই কিশোর এরকম একটি চার্জার তৈরির পরিকল্পনা করে ফেলে। তিন মাসের ভিতরে তাঁরা তাঁদের প্রথম মডেলটাও তৈরি করে ফেলে।

প্রথম মডেলটিতে অনেক সমস্যা থাকায় তারা সেই সমস্যাগুলোকে চিহ্নিত করে ঠিক করে ফেলে। দিল্লির এই দুই কিশোর এ সম্বন্ধে জানিয়েছেন যে, সাধারন মোবাইল ফোন চার্জ দিতে যত সময় লাগে তার চেয়ে ২০ শতাংশ কম সময়ে এই ওয়াকিং চার্জারের মাধ্যমে চার্জ হয়ে যাবে।

মোহক ও আনন্দের তৈরি ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক ইনডাকশন পদ্ধতিতে কাজ করা এই যন্ত্রটিকে গোড়ালির নীচের দিকে রাখা হয়। চার্জারের দুটি অংশের মধ্যে একটি ডায়নামো ও অপরটি বাফার।

আমাদের হাঁটার সময় গোড়ালিতে চাপ সৃষ্টি হওয়ার ফলে উৎপন্ন শক্তি ডায়নামোকে ঘোরাতে সাহায্য করে। এবং এই ডায়নামো ঘোরার ফলে যে বৈদ্যুতিক শক্তি উৎপন্ন হয় তা দিয়েই আপনার মোবাইল ফোনটি চার্জ হবে।

বর্তমানে মোহক ভাল্লা দিল্লির ‘Bharati Vidyapeeth College of Engineering’ থেকে B.Tech করছে এবং তার বাল্যবন্ধু আনন্দ গঙ্গাধারণ চেন্নাইয়ের ‘Vellore Institute of Technology’ থেকে B.Tech করছে।

বর্তমানে তাঁদের বানানো চার্জার এর আকার বড়ো হওয়ার কারনে যাতে সেটা পায়ে পরতে সমস্যা না হয়, সেইজন্য এই নিয়ে তাঁরা খতিয়ে দেখছে। তাঁরা জানিয়েছেন যে, প্রাথমিকভাবে এরকম একটি চার্জার তৈরি করতে প্রায় ২০০০ টাকা খরচ হয়েছে। কিন্তু যখন একই সাথে অনেকগুলি চার্জার তৈরি হবে তখন খরচ অনেকাংশেই কমে যাবে। এবং সবাই তা সুলভে কিনতে পারবে। তাঁরা জানিয়েছে, বছর দুয়েকের মধ্যে তাঁদের তৈরি এই চার্জার বাজারে আসতে চলেছে।

বিজ্ঞাপন
Samar Halder:
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন