ঈশ্বর

জানেন শিব ঠাকুরের বাবা কে ? জেনে নিন তাহলে…

তেত্রিশ কোটি দেবতার মধ্যে এক-একজন এক-এক বেশে এবং এক এক বিশেষ ক্ষমতার অধিকারী। তেত্রিশ কোটি দেবতার মধ্যে শিব ঠাকুরের পোশাক কিন্তু একেবারে ভিন্নরকম।মাথায় জটা, জটায় সাপ নিয়ে বাঘছালে শিব ঠাকুন একেবারে ইউনিক।পুরাণ-এ আছে, এক সাধু শিব ঠাকুরকে কে ছিল তার বাবা জানতে চাইলে এই প্রশ্নের উত্তরে শিব জানিয়েছিলেন,


ব্রহ্মাই নাকি তাঁর বাবা৷ পরক্ষনে আবার সেই সাধুটি শিব ঠাকুরের কাছে জানতে চান, তার দাদু কে? শিব উত্তরে বলেন, তার দাদু ছিলেন বিষ্ণু৷


তবে এখানেই থেমে যান নি সাধু৷ তিনি আবার প্রশ্ন করেন, শিবের প্রপিতামহ কে ছিলেন? এই প্রশ্নের উত্তর শুনে চমকে যান ওই সাধু৷ শিব জানান, তিনি নিজেই নিজের প্রপিতাম। 

তবে, এখানেই শেষ নয়। শিব ঠাকুরের জন্মের পিছনে রয়েছে আরও একটি মজার ঘটনা৷


পুরাণ-এ আছে, ব্রহ্মা এবং বিষ্ণুর মধ্যে কে বেশি শক্তিশালী, এই নিয়ে দু’জনের মধ্যেই বাগবিতন্ডা হয়৷ সেই সময় আচমকাই হালকা একটি জ্বলন্ত বাতিস্তম্ভ দেখা যায়৷


যে বাতিস্তম্ভের শুরু এবং শেষ কোথায় সেটি কোনদিন জানতে পারেন নি ব্রহ্মা কিংবা বিষ্ণুরও৷ হিন্দু ধর্মগ্রন্থ অনুযায়ী জানা গিয়েছে, শিব ঠাকুরের জন্ম হয় এই বাতিস্তম্ভ থেকেই হয়েছিল৷ বাতিস্তম্ভের মতনই শিবঠাকুরের জন্ম এবং মৃত্যু আজও অজানা।

end

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *