মেয়েকে নিয়ে দুপুর রোদে বিক্রি করতো পেন,কেউ একজন ছবি তোলে আর বদলে যায় তার জীবন। পুরোটা পড়ুন চমকে যাবেন….

বিজ্ঞাপন

আপনাদেরকে আমরা জনিয়ে রাখি যে ,এইসময় সিরিয়াতে গৃহযুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে । সেই কারণেই সেখানে থাকা জনসাধারণের জীবন উথাল-পাথাল হতে শুরু হয়েগেছে। লোকজনে রা এই গৃহযুদ্ধ দেখে নিজের দেশ ছেড়ে অন্যদেশে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে।আপনাদের আরো কিছু কথা জানিয়ে রাখি যে ,লেবানন এর শহর বেরুতে এমন সিরিয়ান রিফ্যুজি আছে যারা রাস্তায় থাকার জন্য অসহায় হয়েগেছে। আর এসকল লোকজনেরা ছোট-খাটো কাজ করে নিজেদেরই দু বেলা পেট ভরানোর জন্য অসহায় হয়ে যায়।

source – Internet


এছাড়া এরা টাকা রোজগারের জন্য রাস্তায় পেন-ও বিক্রি করেন, কিন্তু একটা ছবির জন্য যার জীবন পুরোপুরি বদলে গেল সেই লোকটার নাম হল “আব্দুল”। তিনি তার নিজের মেয়েকে নিজের কাঁধে উঠিয়ে রাখেন, আর এই উত্তপ্ত রোদে তিনি পেন বিক্রি করার চেষ্টা করছিলেন, আর এই ছবিই সকলকে কাঁদিয়ে দিলো। এই ছবি গুলি ছড়িয়ে পড়ার পরে একটি রিপোর্টার টুইটারে একটি একাউন্ট বানিয়ে দেন , এই অ্যাকাউন্টে ৫০০০০ ডলারের লক্ষ্য রাখলো ।

source – Internet


আপিল করার সময় পুরো হয়ে যাওয়ার পর দেখা গেল যে এই একাউন্টে কেবল ১ কোটি ২৫ লক্ষ সহায়তা প্রাপ্ত হল ও জার্নালিস্টটি পুরো টাকা আব্দুল কে দিয়ে দিলেন। সেই টাকা থেকে আব্দুল একটি ব্যাবসাও শুরু করলেন ও বাকি রিফুজিদেরও সাহায্য করলেন তিনি।

source- Internet

ও সেইসঙ্গেই ১৬ জন রিফুজিদের তার ব্যবসাতে শামিল করলেন। লেবাননে কমবেশি ১২ লক্ষ জন রিফ্যুজি আছে। আর এখন বলতে গেলে আব্দুলের কাছে কোনো জিনিসেরই অভাব নেই । সকলের সাহায্যেই তিনি আজ ব্যবসায়ী। বর্তমানে তিনি একটা বিশাল বড় ফ্ল্যাটে নিজের মেয়ে রীম ও ছেলে আব্দুল্লাহ কে নিয়ে থাকেন।

পনার মতামত জানাতে কমেন্ট করুন

নীচের কমেন্ট বক্সে….

বিজ্ঞাপন
Sanjib:
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন