জেনে নিন বিয়ের পর প্রথম সন্তান নেওয়ার সঠিক সময় কোনটি জানতে হলে ক্লিক করুন…

বিজ্ঞাপন

বিয়ের পর যে প্রশ্নটি মেয়েদের অনেকবার শুনতে হয় তা কি জানুন, বয়স তো হয়ে যাচ্ছে, বাচ্চা কবে নেবে? সন্তান নেওয়ার সিদ্ধান্তটি এখন একটি বড় চ্যালেঞ্জ।

কেননা ক্যারিয়ার, পড়াশোনা, দাম্পত্য জীবন গুছিয়ে নেওয়া ইত্যাদি হিসাব-নিকাশ করে আধুনিক নারীরা সন্তান নিতে চান। কিন্তু সন্তান নেওয়ার কোনো আদর্শ সময় আছে কি?

আগে মনে করা হতো, ২০ বছরের আগে প্রথম সন্তান নেওয়া ভালো। এখন সময় বদলেছে। মেয়েরা ক্যারিয়ারের জন্য কিছুটা দেরিতে বিয়ে করছে। তবে এখনো চিকিৎসকেরা বলেন, প্রথম সন্তানটি ২৫ বছর বয়সের আগে নিলে ভালো।

সমীক্ষা বলে, ৩০ বছর পেরিয়ে গেলে প্রজননক্ষমতা প্রায় ৫০ শতাংশ কমে যায়। ৩৫ বছরে পর ডিম্বাণুর সংখ্যা কমে যায় আরও বেশি।

এ ছাড়া এ বয়সে গর্ভধারণের পরে গর্ভকালীন ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, প্রসব-পূর্ব রক্তক্ষরণ ও প্রসবকালীন জটিলতা বেড়ে যায়। সবচেয়ে আশঙ্কার বিষয় হলো, জন্মগত ত্রুটিযুক্ত এবং ডাউন সিনড্রোম সন্তান জন্মদানের হার অনেক বেশি হয়, যদি মায়ের বয়স বেশি থাকে।

এসব ক্ষেত্রে স্বাভাবিক প্রসবে হার অনেক কমে যায় এবং অস্ত্রোপচারে জন্ম বেশি হয়। অনেকে প্রথম সন্তানটি নেওয়ার পর ক্যারিয়ার গুছিয়ে নিতে একটু দীর্ঘ বিরতি নেন। পরে মা হওয়ার জন্য কয়েক মাস চেষ্টার পরেই অনেকে অধৈর্য হয়ে যায়। সে ক্ষেত্রে ন্যূনতম ছয় মাস অপেক্ষা করতে হবে।

তারপর প্রয়োজনে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।তবে সুস্থ শিশু জন্মদানের জন্য স্বামী-স্ত্রী দুজনের বয়সের দিকেই খেয়াল রাখা উচিত। নারীদের ৩০ বছরের মধ্যে এবং পুরুষদের ৩৫ বছরের মধ্যে প্রথম সন্তান নিয়ে নেওয়া ভালো। তারপরও একটু বেশি বয়সে সন্তান নিতে হলে একজন বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে থাকা ভালো, কেননা এই গর্ভধারণগুলোতে জটিলতা হতে পারে।

বিজ্ঞাপন
Malay Chakraborty:
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন